জেনে নিন মৃত ব্যাক্তির নামে পশু কোরবানি করা জায়েয কি না ???

কোরবানি শব্দটি “আরবি” কোরবান শব্দ থেকে আগত ।যার অর্থ হলো আল্লাহ্‌র রহমত লাভের জন্য আল্লাহ্‌র নিকট সবচেয়ে প্রিয় পশুটি সর্মাপন করা ।

সামনে আর কিছুদিন পরেই আসছে পবিত্র কোরবানি ঈদ আর এ ঈদকে সামনে রেখে চলছে মানবসমাজে পশু কেনার ভিড় ।

আমরা প্রতেকে জানি যে , প্রতিটি কোরবানি পশুর প্রত্যেকটি পশমের বিনিময়ে রয়েছে এক একটি নেকি । আর এ কোরবানি করা হয়ে থাকে প্রতি কোরবানি প্রতি এক জনের নামে ।

আমাদের সমাজে অনেক আগে থেকেই কোরবানি নিয়ে একটি কথা উঠে থাকে তা হচ্ছে যে, মৃত ব্যাক্তির নামে কোরবানি করা জায়েয কিনা ?

আসলে এই কোরবানি নিয়ে আমাদের মাঝে নানা ধরনের ভ্রান্ত ধারনা রয়েছে যেমনঃঅনেকের ধারনা কোরবানি শুধু মৃত ব্যাক্তিদের জন্য বা তাদের পক্ষ থেকে করা হবে ।এ ধারনাটি মোটেই ঠিক নয়।

মৃত ব্যাক্তির নামে পৃথক কোন কোরবানি করার কোন প্রকার দলিল নেই।তবে মৃত ব্যাক্তির নামে করবানি করা জায়েয ও সোয়াবের কাজ । কোরবানি একটি সদকা ।আর যেমন মৃত ব্যাক্তির নামে সদকা করা যায় তেমনি কোরবানিও দেয়া যায় । তবে মৃত ব্যাক্তি এর দ্বারা উপকৃত হবে ।

মৃত বাক্তির নামে হাদিসে এসেছে ,
আয়েশা(রাঃ) থেকে বলা হয়েছে ,এক ব্যাক্তি রাসূলুল্লাহ (রাঃ) এর কাছে এসে প্রশ্ন করলেন, হে আল্লাহ্‌র রাসুল! আমার মা হঠাৎ ইন্তেকাল করেছেন। কোন অসিয়ত করে যেতে পারেননি ।আমার মতে তিনি মৃত্যুর আগে যদি কোন কথা বলতে পারলে তিনি অসিয়ত করে যেতেন ।আমি যদি তার কাছ থেকে সদকা করি তাতে কি তার সওয়াব হবে ? তিনি উত্তর দিলেন হ্যাঁ ।(সহীহ বুখারী,হাদীস নং১৩১৩৮;সহীহ মুস্লিম,হাদীস নং ১০০৪)।

মৃত ব্যাক্তির জন্য এ ধরনের সদকা ও কল্যাণমূলক কাজের যেমন যথেষ্ঠ প্রয়োজন ও তেমনি তার জন্য উপকারি ।যদি কোন কারনে মৃত ব্যাক্তির জন্য কোরবানি ওয়াজিব হয়ে থাকে তাহলে তার জন্য একটি পূর্ণ কোরবানি করতে হবে ।
অনেক সময় দেখা যায় ব্যাক্তি নিজেকে বাদ দিয়ে মৃত ব্যাক্তির পক্ষে কোরবানি করেন । এটা মোটেও ঠিক না । মনে রাখবেন ভালো কাজ আগে নিজেকে দিয়ে শুরু করতে হবে এবং তার পরে অন্যান্য জীবিত ও মৃত ব্যাক্তির পক্ষে করা যেতে পারে ।

Related Articles